Breaking News

এক ক্লিকেই বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ





  • লাইনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষার অভিজ্ঞতা কিংবা ডাক্তারের অ্যাপয়েন্টমেন্ট পেতে অনেক ভোরে ফোন করা বাংলাদেশের মানুষের জন্য নৈমত্তিক ঘটনা। এমনকি অ্যাপয়েন্টমেন্ট পাওয়ার পরেও স্বনামধন্য ডাক্তারের দেখা পেতে দু’মাসের বেশিও অপেক্ষা করা লাগতে পারে। কিন্তু এখন মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে মুহূর্তেই দেশের সেরা দশজন ডাক্তারের একজনের সাক্ষাতের সময় পাওয়া সম্ভব।

    দেশের সর্বপ্রথম ডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবাদাতা প্রতিষ্ঠান টেলিনরের ‘টনিক’ তাদের সদস্যদের জন্য এ সুযোগ নিয়ে এসেছে। টনিকের প্রিমিয়াম প্যাকেজ ব্যবহারকারীরা এখন তাদের প্রয়োজন ও পছন্দ অনুযায়ী স্বনামধন্য ডাক্তারের সাক্ষাতের সময় বুকিং দিতে পারবেন। টনিক অ্যাপে নির্দিষ্ট অপশনের মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা তাদের নির্দিষ্ট এলাকা এবং প্রয়োজন অনুযায়ী ডাক্তার খুঁজে নিতে পারবেন।

    পারবেন পছন্দের ভিত্তিতে ডাক্তারের অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিয়ে নিতে। টনিক অ্যাপ ব্যবহারকারীদের জন্য অ্যাপটিতে রয়েছে সার্চ অপশনের এলাকা, নির্দিষ্ট মেডিকেল বিভাগ এবং অ্যাপয়েন্টমেন্ট ট্র্যাকিং করাসহ অ্যাপয়েন্টমেন্টের জন্য এসএমএস অ্যালার্ট। এসএমএস অ্যালার্ট নিশ্চিত করবে যেনো কোনো অবস্থাতেই ব্যবহারকারীরা আকাঙ্ক্ষিত অ্যাপয়েন্টমেন্টের কথা ভুলে গিয়ে স্বনামধন্য বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেয়ার তারিখ ভুলে না যান।

    এ নিয়ে টেলিনর হেলথের চিফ মেডিকেল অ্যান্ড প্রডাক্ট অফিসার ফ্রেড হার্শ বলেন, ‘টনিকের অ্যাপয়েন্টমেন্ট বুকিং সেবা গ্রাহককে অত্যন্ত সহজেই কাছাকাছি দূরত্বে প্রয়োজন অনুযায়ী সঠিক ডাক্তার খুঁজে পেতে সহায়তা করবে। এ ফিচার দেশজুড়ে গ্রাহকদের পছন্দের ডাক্তারের অ্যাপয়েন্টমেন্ট খুঁজে পেতে সহায়তা করবে।’

    দেশে থ্রিজি সূচনার পর থেকে শুধুমাত্র শহরাঞ্চলেই নয়, গ্রামাঞ্চলেও স্মার্টফোন ও ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। এ অগ্রগতির সাথে সাথে গণমানুষের জীবনধারায় ইতিবাচক পরিবর্তন এসেছে। টনিক অ্যাপের অ্যাপয়েন্টমেন্ট বুকিং সেবার মাধ্যমে তাসনিম টনিকেরই নিবন্ধিত একজন স্বনামধন্য ডাক্তারের অ্যাপয়েন্টমেন্ট বুকিং দিতে পেরেছে। এ সম্পূর্ণ প্রক্রিয়ায় প্রয়োজন ও পছন্দ অনুযায়ী ডাক্তারের বুকিং দিতে তার সময় লেগেছে মাত্র পাঁচ মিনিটেরও কম।

    টনিক টেলিনর হেলথের প্রথম ডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবা। দেশের স্বাস্থ্যসেবাকে সহজে আরও অনেক মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে ২০১৬ সালে বাংলাদেশ টনিকের সেবা চালু করে টেলিনর হেলথ। ‘সমাজের ক্ষমতায়ন’ নিয়ে টেলিনর গ্রুপের লক্ষ্যপূরণে সহায়তা করতে এবং এশিয়ার প্রতি টেলিনর হেলথের প্রতিশ্রুতি পূরণে এদেশে কাজ করা শুরু করেছে টেলিনর হেলথ। পাশাপাশি, মানুষ ও সমাজের উন্নয়নে নতুন প্রযুক্তির বিস্তৃতিতেও ধারাবাহিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।